প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ১৬ August ২০১৮

জাতীয় শোক দিবস -২০১৮ পালন উপলক্ষে প্রাথমিক ও গণ শিক্ষা মন্ত্রণালয় কর্তৃক অদ্য ১৫ আগস্ট বিনম্র শ্রদ্ধায় দিন ব্যাপীবিভিন্ন কর্মসূচী পালন করা হয়।


প্রকাশন তারিখ : 2018-08-16

শতাব্দীর মহানায়ক, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালী, বাঙালীর রাখাল রাজা, স্বাধীনতার স্বপ্নদ্রষ্টা ও মহান স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৩ তম শাহাদাত বার্ষিকীতে জাতীয় শোক দিবস -২০১৮ পালন উপলক্ষে প্রাথমিক ও গণ শিক্ষা মন্ত্রণালয় কর্তৃক অদ্য ১৫ আগস্ট বিনম্র শ্রদ্ধায় দিন ব্যাপীবিভিন্ন কর্মসূচী পালন করা হয়। 
দিনব্যাপী উদযাপিত কর্মসূচী গুলো ছিল সূর্যোদয়ের সাথে সাথে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিতকরণ, সকাল ৯:০০ প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর জামে মসজিদ-এ কোরআনখানি এবং মিরপুর কেন্দ্রীয় মন্দির-এ বিশেষ প্রার্থনা, সকাল ১০:০০ ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি যাদুঘরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের -এর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ এবং শ্রদ্ধাঞ্জলি, দুপুর ০১:৩০ প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর জামে মসজিদ-এ জাতীয় শোক দিবস -২০১৮ পালন উপলক্ষে দোয়া মাহফিল ও বিশেষ মোনাজাত, দুপুর ০৩:০০ ঢাকা মহানগরীর থানা ও উপজেলা পর্যায়ের প্রথম, দ্বিতীয় এবং তৃতীয় স্থান অধিকারী ৫১ জন শিশু নিয়ে চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা আয়োজন ও পুরষ্কার বিতরণ, দুপুর ০৩:৩০ প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের কর্মকর্তা, কর্মচারী এবং শিক্ষকগণ কর্তৃক স্বেচ্ছায় রক্তদান কর্মসূচী পালন, বিকেল ৪:০০ প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মাল্টিপারপাস হলে জাতীয় শোক দিবস -২০১৮ উপলক্ষে আলোচনা সভা। প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের কর্মকর্তা, কর্মচারী এবং শিক্ষকগণ কর্তৃক স্বেচ্ছায় শতাধিক ব্যাগ রক্তদান করেন।

বিকেল ৪:০০ ঘটিকায় আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সম্মানিত সচিব জনাব মোহাম্মদ আসিফ-উজ-জামান । সভায় সভাপতিত্ব করেন ড. মোঃ আবু হেনা মোস্তফা কামাল এনডিসি, মহাপরিচালক, প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সম্মানিত অতিরিক্ত সচিব সর্বজনাব মোঃ গিয়াস উদ্দীন আহমদ, ড. এ এফ এম মনজুর কাদের এবং জনাব জিএম হাসিবুল আলম । এছাড়া আরও উপস্থিত ছিলেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তাবৃন্দ এবং প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের সকল পরিচালক, উপপরিচালক, সহকারী পরিচালক, শিক্ষা কর্মকর্তা এবং কর্মচারীবৃন্দ। প্রধান অতিথি, বিশেষ অতিথিবৃন্দ এবং প্রাথমিক শিক্ষা অধিপ্তরের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দ বঙ্গবন্ধুর শৈশব, কৈশর, বঙ্গবন্ধুর শিক্ষা জীবন, বঙ্গবন্ধুর পারিবারিক জীবন,বঙ্গবন্ধুর সামাজিক জীবন, বঙ্গবন্ধুর কারাবাস, বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক জীবন, বঙ্গবন্ধুর ধর্মীয় চেতনা, রাষ্ট্রনায়ক বঙ্গবন্ধু, বিশ্বনেতা বঙ্গবন্ধু, মানবতাবাদী বঙ্গবন্ধু ও শিশু-প্রেমী বঙ্গবন্ধু শীর্ষক বিষয় নিয়ে বিভিন্ন তথ্য-উপাত্ত সম্বলিত বিস্তারিত আলোচনা করেন। প্রধান অতিথির বক্তব্যে সচিব প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় জাতির পিতার দূরদর্শী নেতৃত্ব, আপোষহীন সংগ্রাম এবং সদ্য স্বাধীন বাংলাদেশ বিনির্মানে অভূতপূর্ব সাফল্যের বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন। তিনি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে উন্নত বাংলাদেশ গড়ে তুলবার লক্ষ্যে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা পরিবারের সকল সদস্যকে তাৎপর্যপূর্ণ অবদান রাখার আহবান জানান। মহাপরিচালক, প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর ড. মোঃ আবু হেনা মোস্তফা কামাল এনডিসি, তার বক্তব্যে বলেন, প্রাথমিক শিক্ষা পরিবারের রয়েছে জাতির পিতার জন্য বিশেষ দায়ভার। তিনিই সেই মহান নেতা যিনি তাঁর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ার লক্ষ্যে স্বাধীনতার অব্যবহিত পরেই যুদ্ধ বিধস্ত অবকাঠামো ও প্রকট সংকটাপন্ন অর্থনীতির উপর দাঁড়িয়ে এক সঙ্গে প্রায় সাইত্রিশ হাজার প্রাথমিক বিদ্যালয়কে সরকারিকরণ করেছিলেন, জাতীয়করণ করেছিলেন প্রায় এক লক্ষ ষাট হাজার শিক্ষকের চাকুরী । সাংবিধানিকভাবে প্রাথমিক শিক্ষাকে অবৈতনিক ও বাধ্যতামূলককরণে দৃঢ় অঙ্গীকার ও প্রত্যয় ব্যক্ত করেছিলেন।
আজ সমগ্র প্রাথমিক শিক্ষা পরিবার সদর কার্যালয়সহ সারাদেশে দিনব্যাপী বিভিন্ন কর্মসূচির মাধ্যমে সশ্রদ্ধচিত্তে স্মরণ করছে জাতির পিতাকে। জাতির পিতাসহ পচাত্তরের পনের আগস্টের কালরাতে নিহত সকলের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করছে প্রাথমিক শিক্ষা পরিবার।

শোককে শক্তিতে পরিনত করে জাতির পিতার সুযোগ্য কণ্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুদক্ষ,গতিশীল ও দূরদর্শী নেতৃত্বে উন্নয়নের মহাসড়কে ধাবমান আমাদের প্রিয় মাতৃভূমি বাংলাদেশের জন্য স্বাধীনতা ও মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় শাণিত দেশপ্রেমিক দক্ষ মানবসম্পদ গড়ে তোলার লক্ষ্যে সমগ্র প্রাথমিক শিক্ষা পরিবারের প্রতিটি সদস্য নিবেদিত প্রাণ হয়ে নিরলসভাবে কাজ করবে আজ এই আমাদের দৃঢ় অঙ্গীকার । প্রসঙ্গত উল্লেখ্য যে এ উপলক্ষে ‘বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ’ নামে একটি দেয়ালিকা প্রকাশ করা হয় এবং আগামীকাল ১৬ আগস্ট ঢাকা মহানগরীর ১০০ জন শিশুকে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি যাদুঘর পরিদর্শনের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

 


Share with :

Facebook Facebook